সারাদেশ

প্রশাসনের হস্তক্ষেপে রৌমারী-চিলমারী নৌপথে যাত্রীদের স্বস্তির ঈদযাত্রা

Sayeduzzaman shad   কুড়িগ্রাম

১৭ জুন ২০২৪


প্রশাসনের হস্তক্ষেপে রৌমারী-চিলমারী নৌপথে যাত্রীদের স্বস্তির ঈদযাত্রা
প্রশাসনের হস্তক্ষেপে রৌমারী-চিলমারী নৌপথে যাত্রীদের স্বস্তির ঈদযাত্রা | ছবি: Sayeduzzaman Shad (News Editor)

আশ্বাস বাস্তবায়ন করলে ঈদযাত্রা যে ভোগান্তিহীন হতে পারে তার বাস্তব উদাহরণ কুড়িগ্রামের রৌমারী-চিলমারী নৌঘাট। ঘরমুখো যাত্রীদের কাছে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় ও হয়রানির খবরে জেলা প্রশাসন ও জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ঘাট পরির্দশন করে কঠোর অবস্থান নেওয়ার পর ওই ঘাটে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধ হয়েছে। শুরু হয়েছে ঘরমুখো মানুষের স্বস্তির ঈদযাত্রা। এর আগে, ওই নৌপথে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় ও যাত্রী হয়রানি বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল আরীফ ও পুলিশ সুপার আল আসাদ মো. মাহফুজুল ইসলাম। আশ্বাস বাস্তবায়নে রৌমারী নৌঘাটে যৌথ নজরদারি শুরু করেছে প্রশাসন। রবিবার (১৬ জুন) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত রৌমারী ঘাটে অবস্থান করেছেন রৌমারী উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম শালু, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ আছিফ উদ্দীন মিয়া ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) সাজ্জাদ হোসেন। পুলিশ ও জেলা প্রশাসনের যৌথ উপস্থিতিতে ঘাটে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে এসেছে। নিরসন হয়েছে যাত্রী হয়রানি। ঢাকা ও গাজীপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে জামালপুর-রৌমারী হয়ে রৌমারী-চিলমারী নৌপথে ঘরমুখো যাত্রীরা নির্বিঘ্নে ব্রহ্মপুত্র পাড়ি দিয়ে বাড়ি ফিরছেন। যাত্রীরা বলছেন, ‘রবিবার সকাল থেকে নৌকার নিয়মিত ভাড়া ১০০ টাকা করে নেওয়া হচ্ছে। মোটরসাইকেল ভাড়া ৬০ টাকা। ওঠানো-নামানো খরচও স্বাভাবিক সময়ের মতো। ফেরিতেও যাত্রীদের ভ্রমণ ছিল ভোগান্তিহীন। সব মিলিয়ে স্বস্তি প্রকাশ করে প্রশাসনের এমন উদ্যোগের জন্য সাধুবাদ জানিয়েছেন ওই নৌপথের যাত্রীরা। ঈদের ছুটিতে রৌমারী-চিলমারী নৌপথে কুড়িগ্রামে আসা নৌযাত্রী রাকিবুল ইসলাম বলেন, ‘শনিবারও (১৫ জুন) শুনেছিলাম ভাড়া বেশি নেওয়া হচ্ছিল। কিন্তু আজ পরিস্থিতি ভিন্ন। পুলিশ ও প্রশাসনের লোকজনের উপস্থিতিতে সব কিছু স্বাভাবিক। আমরা এমনটাই চাই। আমার মতো সকল যাত্রী আজ খুশি। আশা করি ফিরতি যাত্রাতেও একইভাবে নজরদারি থাকবে।’ একইভাবে স্বস্তি প্রকাশ করেন রৌমারী ঘাট থেকে চিলমারীর উদ্দেশে দুপুর ২টায় ছেড়ে যাওয়া নৌকার যাত্রীরা। যাত্রী ভোগান্তি নিরসনে রৌমারী ঘাট পরিদর্শনে যাওয়া অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘আমরা যাত্রীদের অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি। তাৎক্ষণিক কিছু ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ইজারাদারকে নৌযাত্রার সময়সূচিসহ ভাড়ার তালিকা প্রকাশ্যে টানিয়ে দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের লোকজন ঘাটে নজরদারি রাখবে। ইজারাদার জানিয়েছেন, সিরিয়ালের নৌকায় নিয়মিত যাত্রীভাড়া ১০০ টাকা এবং সিরিয়ালের বাইরে রিজার্ভ নৌকায় যাত্রীপ্রতি ১৫০ টাকা নেওয়া হবে। আমরা বলেছি, এর বেশি ভাড়া যেন কোনোভাবেই নেওয়া না হয়।’ ঈদের ছুটি শেষে ফিরতি যাত্রায় চিলমারী নৌঘাটেও নজরদারি রাখা হবে বলেও জানান তিনি। রৌমারী ঘাট পরিদর্শন শেষে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ আছিফ উদ্দীন মিয়া বলেন, ‘পরিস্থিতি জানতে আমরা ঘাটে গিয়েছিলাম। সেখানে মোটরসাইকেল ওঠানোর জন্য অতিরিক্ত খরচ আদায়ের অভিযোগে কুলিদের সংগঠনকে দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অন্যান্য ভাড়া স্বাভাবিক রয়েছে। ঘাটে দিনভর পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসনের লোকজন উপস্থিত থাকবেন। যাত্রীরা যাতে নদী পারাপারে ভোগান্তির শিকার না হন সেজন্য নজরদারি রাখা হয়েছে।’

54